মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১০:১১ পূর্বাহ্ন

এশিয়ায় ২০২২ সালে গরিব হয়েছেন আরও সাত কোটি মানুষ

ডেইলী বেঙ্গল গেজেট রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২৩ ১২:২০ am

কোভিড-১৯ মহামারী ও জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির কারণে ২০২২ সালে এশিয়ার উন্নয়নশীল দেশগুলোতে নতুন করে প্রায় সাত কোটি মানুষ চরম দরিদ্রতার শিকার হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) বার্ষিক প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়েছে।

এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

এডিবি জানায়, ২০২২ সালে এশিয়ার উন্নয়নশীল অঞ্চলে সাড়ে ১৫ কোটির বেশি মানুষ চরম দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করছেন; যা মহামারীর আগের তুলনায় ৬ কোটি ৭৮ লাখ বেশি।

সংস্থাটি ২০২০ সালে যে পূর্বাভাস দিয়েছিল, কোভিড-১৯ এর কারণে পরের বছর তার তুলনায় অতিরিক্ত মানুষ চরম দারিদ্র্যের শিকার হন।

২০২১ সালে এডিবি বলেছিল, এই অঞ্চলে অতিরিক্ত ৭ কোটি ৫০ লাখ থেকে ৮ কোটি মানুষ চরম দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে যেতে পারে।

বিশ্বব্যাংকের মতে, ২০১৭ সালের দ্রব্যমূল্য ও মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ রেখে দিনে ২.১৫ ডলারের কম অর্থে জীবনযাপন করাই চরম দরিদ্রতা।

এডিবি বলছে, এশিয়ায় দরিদ্রতা কমার ইতিবাচক ধারা রয়েছে। তবুও ২০৩০ সালের মধ্যে এই অঞ্চলের ৩০.৩% মানুষের দৈনিক আয় ৩.৬৫-৬.৮৫ ডলারের বেশি হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

সংস্থাটির মতে, এশিয়ার মধ্যে অন্তত ৪৬টি অর্থনীতির দেশই উন্নয়নশীল। সঙ্কট নিরসনে এসব দেশকে সামাজিক কল্যাণ জোরদার, উন্নত আর্থিক সেবা, অবকাঠামোগত বিনিয়োগ ও প্রযুক্তি উন্নয়নে জোর দিতে হবে।

এডিবি প্রধান অর্থনীতিবিদ আলবার্ট পার্ক বলেন, “এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল কোভিড-১৯ মহামারীর সময় কাটিয়ে উঠেছে। তবে জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির কারণে দরিদ্রতা দূরীকরণের গতি স্লথ হয়ে এসেছে।”

তিনি বলেন, “নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা শক্তিশালী করার সঙ্গে সঙ্গে বিনিয়োগ ও প্রযুক্তির মাধ্যমে নতুন কর্মসংস্থান গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই মানুষ এই সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে পারবে।”

 

আরো

© All rights reserved © 2023-2024 dailybengalgazette

Developer Design Host BD