শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৬:৪৯ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের জরুরি জলবায়ু তহবিল প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

ডেইলী বেঙ্গল গেজেট রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২৩ ৩:১৭ pm

জলবায়ু সংকটের প্রভাব প্রমত্তা পদ্মা নদীর পানিতে প্রতিফলিত হয়েছে। তবুও এই জরুরি পরিস্থিতিতে বিশেষত প্রশমন, অর্থ এবং অভিযোজনের ক্ষেত্রে প্রতিক্রিয়া ধীর রয়ে গেছে। থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশনের মিডিয়া প্লাটফর্ম কনটেক্সট ফর কনটেক্সটে এক মতামত নিবন্ধে এ মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কপ-২৮ সম্মেলনে এসব ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির ওপর গুরুত্বারোপ করেন। মূল লক্ষ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস উষ্ণতার সীমা বজায় রাখা, গ্লোবাল স্টকটেকের ফলে উচ্চাকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধি নিশ্চিত করা এবং বিশেষত বাংলাদেশের মতো ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর জন্য জরুরিভাবে অর্থ সংগ্রহ করার বিষয়টি নিয়েও তিনি লিখেছেন।

বৈশ্বিক কার্বন নিঃসরণের জন্য বাংলাদেশ মাত্র শূন্য দশমিক ৪৭ শতাংশ দায়ী হলেও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সপ্তম ঝুঁকিপূর্ণ দেশ। প্রধানমন্ত্রীর মতে, বাংলাদেশ কয়েক দশক ধরে ক্রমবর্ধমান নির্গমনের পরিণতি সহ্য করেছে। যার প্রমাণ ৪০ ডিগ্রির ওপরে তাপমাত্রা, তীব্র তাপপ্রবাহ, বিদ্যুৎ বিভ্রাট, স্কুল বন্ধ এবং বিধ্বংসী বন্যা, যা কেবল আগস্টেই ৫৫ জনের মৃত্যু এবং হাজার হাজার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

তিনি লিখেছেন, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের সময় জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে সক্রিয়ভাবে বিনিয়োগ করেছে। মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনায় ২০৩০ সালের মধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানি সক্ষমতা ৩০ শতাংশে উন্নীত করা, টেকসই কৃষি রক্ষণাবেক্ষণ এবং বিদ্যুৎ গ্রিডের আধুনিকায়নসহ জলবায়ু সহনশীলতার জন্য একটি রূপান্তরমূলক কৌশলের রূপরেখা দেওয়া হয়েছে।

বন্যা প্রতিরোধ, সমুদ্রপ্রাচীর, ম্যানগ্রোভ বন নির্মাণ এবং স্যাটেলাইট আবহাওয়া ট্র্যাকিং সিস্টেম বাস্তবায়নে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা বিস্তৃত রয়েছে। এই উদ্যোগগুলো দেশের জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনার অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং বেঁচে থাকার জন্য অপরিহার্য।

এছাড়া, অভিযোজন আন্তঃসংযুক্ত অর্থনীতি এবং খাতগুলোতে প্রবৃদ্ধি অন্তর্ভুক্ত করার জন্য পরিবেশগত ব্যবস্থার বাইরেও প্রসারিত। এর জন্যও উল্লেখযোগ্য বিনিয়োগ প্রয়োজন। এরমধ্যে রয়েছে সৌর প্রযুক্তিকে আরও সাশ্রয়ী মূল্যের করা, ইনভার্টারের উপর কর সংশোধন করা এবং আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা।

কপ-২৮-এর নেতারা অভিযোজন তহবিলে ১৬৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলারির প্রতিশ্রুতি দিলেও, এটি বার্ষিক ৩০০ মিলিয়ন ডলারের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম। ধনী দেশগুলোকে তাদের দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কপ-২৮-এ সীমিত সময় বাকি থাকায় তিনি কার্বন নিঃসরণকারী বৃহত্তম দেশগুলোকে ন্যাশনালি ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন (এনডিসি) এবং উন্নত দেশগুলোকে প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থায়নের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনার মতে, জলবায়ু অর্থায়নকে অবশ্যই তিনটি মানদণ্ড পূরণ করতে হবে: বাংলাদেশের মতো দেশগুলোর জন্য সামনের ঝুঁকিপূর্ণ বছরগুলো বিবেচনা করে পর্যাপ্ততা, ধারাবাহিকতা এবং ব্যবহার যোগ্যতা। তিনি আন্তর্জাতিক অংশীদারদের অভিন্ন লক্ষ্য, সিদ্ধান্তমূলক পদক্ষেপ এবং আরও বিলম্বের ব্যয় স্বীকার করার জন্য গভীরভাবে চিন্তা ভাবনা করার আহ্বান জানান। চলমান প্রচেষ্টার প্রশংসা করার পাশাপাশি তিনি সর্বশেষ বিজ্ঞানের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সংহতিরও আহ্বান জানান।

জলবায়ু ঝুকিঁ তীব্র হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মিলিতভাবে এবং সিদ্ধান্তমূলকভাবে তাদের মোকাবিলা এবং তুলে ধরার গুরুত্বের উপর জোর দেন।_ইউএনবি

আরো

© All rights reserved © 2023-2024 dailybengalgazette

Developer Design Host BD