বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৩১ অপরাহ্ন

শঙ্কার মধ্যেই লক্ষ্মীপূজা ও প্রবারণা পূর্ণিমার আয়োজন

ডেইলী বেঙ্গল গেজেট রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২৩ ২:০৪ am

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় অনুষ্ঠান লক্ষ্মীপূজা আগামীকাল শনিবার (২৮ অক্টোবর)। শারদীয় দুর্গোৎসব-পরবর্তী পূর্ণিমা তিথিতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা লক্ষ্মীদেবীর পূজা করে থাকেন। অন্যদিকে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান প্রবারণা পূর্ণিমাও একই দিনে পালন করা হবে।

এদিকে আগামীকাল শনিবার শহরজুড়ে রয়েছে রাজনৈতিক বড় কর্মসূচি। এদিন নয়াপল্টনে মহাসমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শনিবার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ করা হবে।

এই শঙ্কার মধ্যেই পূজা পালনের কথা ভাবছেন হিন্দু ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নেতারা। এ জন্য ধর্মীয় এই আচার পালনের সুবিধার্থে রাজনৈতিক দলগুলোকে শনিবারের কর্মসূচি প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

বড় দুই দলের কর্মসূচি ঘিরে জনমনেও আছে নানা শঙ্কা। দুই দলের সমাবেশকে ঘিরে কয়েক লাখ মানুষের সমাগম হবে রাজধানীতে। আর এই কর্মসূচিকে ঘিরে মানুষের মধ্যে যেমন শঙ্কা আছে, তেমনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও রয়েছে সতর্ক অবস্থানে।

জানা গেছে, লক্ষ্মীদেবীকে বলা হয় ঐশ্বর্যের দেবী। শাস্ত্রমতে, আশ্বিনের পূর্ণিমা তিথিতে ধনসম্পদ, প্রাচুর্য, সৌন্দর্য ও সমৃদ্ধির দেবী লক্ষ্মী বিষ্ণুলোক থেকে পৃথিবীতে নেমে আসেন পূজা গ্রহণ করতে। লক্ষ্মীদেবী সন্তুষ্ট থাকলে সংসারে অর্থকষ্ট থাকে না, বরং সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বাড়ে। শনিবার পূর্ণিমা তিথিতে লক্ষ্মীদেবীর বন্দনা করবেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম এই ধর্মীয় উৎসবটি কোজাগরি লক্ষ্মীপূজা নামেও পরিচিত।

লক্ষ্মীর বাহন পেঁচা। বিষ্ণু রাম ও কৃষ্ণ রূপে অবতার গ্রহণ করলে, লক্ষ্মী সীতা ও রাধা রূপে তাদের সঙ্গিনী হন। কোজাগরী পূর্ণিমা রাতে দেবী লক্ষ্মী ধনধান্যে ভরিয়ে দিতে ভক্তগৃহে আসেন। প্রাচীনকাল থেকেই রাজা-মহারাজা ও ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সাধারণ গৃহস্থ অবধি সবাই দেবী লক্ষ্মীর পূজা দিয়ে আসছেন। লক্ষ্মীকে নিয়ে বাংলার জনসমাজে বিভিন্ন জনপ্রিয় গল্প প্রচলিত আছে। এই গল্পগুলো পাঁচালীর আকারে লক্ষ্মীপূজার দিন পাঠ করা হয়। একে লক্ষ্মীর পাঁচালী বলা হয়।

লক্ষ্মীপূজার গুরুত্বপূর্ণ অনুষঙ্গ হলো— সিঁদুর, ঘট, ধান, মাটি, আম্রপল্লব, ফুল, দুর্বা, তুলসীপাতা, হরীতকী, চন্দন, ধূপ, দীপ, নৈবেদ্য, আতপ চাল ও জল। লক্ষ্মীপূজায় মঙ্গলঘট, ধানের ছড়ার সঙ্গে গৃহস্থের আঙিনায় শোভা পায় চালের গুঁড়োর আলপনায় লক্ষ্মীর ছাপ। এ উপলক্ষে রমণীরা উপবাসব্রত পালন করেন।

লক্ষ্মীপূজায় রাতে জাগরণ করা হয়। কোজাগরী অর্থাৎ কে জাগরী বা কে জেগে আছ।

শাস্ত্রমতে, এই রাতে লক্ষ্মী সবার বাড়িতে যান। যে গৃহের দরজা বন্ধ থাকে ও গৃহস্থরা ঘুমিয়ে থাকেন, সেখান থেকে লক্ষ্মী ফিরে আসেন। এ কারণে এই লক্ষ্মীপূজাকে কোজাগরী বলা হয় এবং রাত জাগরণের নিয়ম রয়েছে। বাঙালি হিন্দুর ঘরে ঘরে দেবী লক্ষ্মীর পূজা হয়ে থাকে। গৃহস্থরা প্রতি বৃহস্পতিবার লক্ষ্মীর পূজা করেন।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, উদ্বেগ করে আর কী হবে! এর মধ্যেই তো সবকিছু চালাতে হবে। আমরা বারবার আহ্বান জানিয়েছিলাম যে পূজার মধ্যে রাজনৈতিক কর্মসূচি না দেওয়ার জন্য। সুতরাং রাজনৈতিক দলগুলো যদি বিষয়গুলো না বোঝে, তাহলে আর কী করার আছে। সবাই তো দায়িত্বশীল জায়গায় আছে। আমরা অনুরোধ করেছিলাম, দেখা যাক। আশা করি সবকিছু ঠিকঠাক মতো হবে।

অন্যদিকে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা। ‘প্রবারণা’ শব্দটি সংস্কৃত ভাষা থেকে এসেছে। ব্যাপক অর্থে প্রবারণা বলতে অসত্য ও অকুশল কর্মকে বর্জন করে সত্য ও কুশল কর্মকে বরণ করা। প্রবারণা পূর্ণিমার অপর নাম ‘আশ্বিনী পূর্ণিমা’। প্রবারণা পূর্ণিমা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের বর্ষাব্রত পালনের সঙ্গে সম্পর্কিত হলেও, এই পূর্ণিমা তিথি সব বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীর কাছে তাৎপর্যপূর্ণ। বৌদ্ধ ভিক্ষুরা আষাঢ়ী পূর্ণিমা থেকে আশ্বিনী পূর্ণিমা পর্যন্ত এই তিন মাস বর্ষাব্রত পালন করেন।

এই তিন মাস তারা বিহারে অবস্থান করেন। যেহেতু একসঙ্গে বসবাস করতে গেলে পরস্পরের মধ্যে ভুলভ্রান্তি হওয়া স্বাভাবিক, সেহেতু ভিক্ষুদের মধ্যেও ভুলভ্রান্তি হতে পারে। তাই বর্ষাব্রত পালন শেষে ভিক্ষুরা আশ্বিনী পূর্ণিমা তিথিতে প্রবারণা করেন। অর্থাৎ এই দিনে ভিক্ষুরা পরস্পরের কাছে তাদের পূর্বকৃত ভুলভ্রান্তির জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন, যার মাধ্যমে বুদ্ধের শাসনের উৎকর্ষ সাধিত হয় এবং ভিক্ষুসংঘের কল্যাণ সাধিত হয়।

ভিক্ষুসংঘের বর্ষাবাস পরিসমাপ্তির এই পবিত্র দিনকে কেন্দ্র করেই প্রবারণা পূর্ণিমা পালন করা হয়। প্রবারণা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের জন্য একটি আবশ্যক বিধিবদ্ধ নিয়ম।

প্রবারণা পূর্ণিমার পরদিন থেকে পরবর্তী এক মাস অর্থাৎ কার্তিকী পূর্ণিমা পর্যন্ত কঠিন চীবর দান সম্পন্ন হয়ে থাকে। বর্ষাবাস সমাপ্তকারী ভিক্ষুরা কঠিন চীবর গ্রহণ করেন। প্রবারণা পূর্ণিমার পবিত্র দিনে বৌদ্ধ উপাসক-উপাসিকারা পরিষ্কার পোশাকে বৌদ্ধ বিহারে সমবেত হয়ে বুদ্ধপূজা করেন, ভিক্ষুদের আহার্য দান করেন, পঞ্চশীল, অষ্টশীল গ্রহণ করেন এবং বিকালে ধর্মীয় সভার আয়োজন করা হয়।

এই পবিত্র দিনের আকর্ষণীয় একটি দিক হলো সন্ধ্যায় ফানুস ওড়ানোর উৎসব। সর্বস্তরের মানুষ ফানুস ওড়ানো উপভোগ করে। ফানুস মূলত ওড়ানো হয় বুদ্ধের কেশ ধাতুর প্রতি পূজা ও সম্মান প্রদর্শনার্থে।

এর আগে ২৮ অক্টোবর বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমায় রাজনৈতিক কর্মসূচি প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছিল বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনসহ কয়েকটি সংগঠন।

বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক ড. সুমন কান্তি বড়ুয়া জানান, ‘২৮ অক্টোবর বিশ্ব বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের উদ্যোগে যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক আনুষ্ঠানিকতায় প্রবারণা পূর্ণিমা উদযাপিত হবে। বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের জন্য এটি দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব। আমাদের প্রত্যাশা ছিল, এ দেশের রাজনৈতিক নেতারা যেকোনও রাজনৈতিক কর্মসূচির ক্ষেত্রে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির কথা বিবেচনা করে আসন্ন পূর্ণিমা তিথিকে রাজনৈতিক কর্মসূচি মুক্ত রাখবেন। কিন্তু দেশের কিছু রাজনৈতিক দল হয়তো অনিচ্ছাকৃত ও অসাবধানতাবশত ওই দিবসে কর্মসূচি দিয়েছে। ইতোমধ্যে এই কর্মসূচি নিয়ে নানা প্রচারণা চলছে।

তিনি বলেন, শঙ্কাহীনভাবে ধর্মপিপাসু মানুষের যাতায়াত এবং দ্বিধাহীন চিত্তে ধর্ম পালনের যথার্থ পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে আমরা দেশের রাজনৈতিক দল ও রাজনীতিবিদদের কাছ থেকে আন্তরিক সহানুভূতি ও সহযোগিতা কামনা করছি। একই সঙ্গে দেশের বৌদ্ধ সম্প্রদায়কে প্রবারণা পূর্ণিমা নির্বিঘ্নে পালনের সুযোগ করে দেওয়ার অনুরোধ জানাই।

আরো

© All rights reserved © 2023-2024 dailybengalgazette

Developer Design Host BD