সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১০:২০ অপরাহ্ন

হাবিল-কাবিলের কাহিনি

ডেইলী বেঙ্গল গেজেট রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০২৩ ২:২২ am

ইতিহাসবিদ আবু জাফর ইবনে জাবির বলেন, ‘হজরত আদম ও হাওয়ার (আ) ঔরসে বিশ জোড়া সন্তান ‎হয়।’‎ ‎ প্রতি জোড়ার একজন ছিল ছেলে, আরেকজন মেয়ে।

একদম প্রথম দুই জোড়ায় যথাক্রমে কাবিল ‎ও হাবিল নামে দুই পুত্রের জন্ম হয়। কাবিল কৃষিকাজ করত আর হাবিল ভেড়া চড়াতেন।

আল্লাহতায়ালা ‎সুরা মায়িদায় এই দুই ভাইয়ের ঘটনা বর্ণনা করেছেন—‎‎‘তাদের সামনে আদমের দুই পুত্রের কাহিনি যথাযথভাবে পড়ে শোনান—যখন তাদের প্রত্যেকে একেকটি ‎কুরবানি পেশ করেছিল এবং তাদের একজনের কুরবানি কবুল হয়েছিল, অন্যজনের কবুল হয়নি। সে ‎‎(কাবিল) বলল, আমি তোমাকে হত্যা করে ফেলব। প্রথমজন (হাবিল) বলল, আল্লাহ তো মুত্তাকিদের পক্ষ ‎হতেই কবুল করেন।’‎

তখনকার দিনে যেকোনো জিনিস দিয়েই কুরবানি করা যেত। নিয়ম ছিল কুরবানির পশু বা অন্যকিছু ‎পাহাড়ের ওপর রেখে আসবে, তারপর আকাশ থেকে আগুন এসে জ্বালিয়ে দেবে। যার কুরবানি আগুনে ‎জ্বলবে না, বোঝা যাবে তার কুরবানি কবুল হয়নি।

তো, হাবিল একটি মোটাতাজা ভেড়া পাহাড়ের চূড়ায় ‎রেখে আসে, আর কাবিল রেখে আসে নিম্নমানের গম ও শস্য। আল্লাহ কাবিলের কুরবানি কবুল করেননি, ‎তার গম ও শস্যের কারণে নয়, বরং তার মাঝে ছিল তাকওয়ার বড্ড অভাব। ‎

আমাদের সবারই মনের ভেতরে লুকিয়ে আছে একটি পশু। ওই পশুর খাদ্য হলো লোভ, হিংসা, অহংকার, ‎কাম ও ক্রোধ। ওটাকে তাই শক্ত শেকল দিয়ে বেঁধে রাখতে হয়, না খাওয়ায়ে দুর্বল বানাতে হয়। ও যদি ‎একবার ছাড়া পায়—তাহলে আর রক্ষা নাই, আমাদের ঈমান-আমল সব ধ্বংস করে ফেলবে।

কাবিল ওই ‎পশুটাকে আটকে রাখতে পারেনি, কুরবানি কবুল না হওয়ায় সে হিংসায় মরে যাচ্ছিল। খুনে-ক্রোধ তাকে ‎অন্ধ করে তুলেছিল, সে একবারের জন্যও এই চিন্তা করেনি—তার ঘাটতি আসলে কোথায়, কোন দোষে ‎আল্লাহ তার কুরবানি কবুল করেননি।

কুরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আল্লাহর কাছে এগুলোর ‎‎(কুরবানির পশুর) গোশত ও রক্ত পৌঁছে না, বরং পৌঁছে তোমাদের তাকওয়া।’‎ ‎

কাবিল মুত্তাকিদের পথ ‎অবলম্বন করার বদলে, নিজেকে বদলানোর পরিবর্তে, জীবনের সবচেয়ে বড়ো ভুল সিদ্ধান্তটি নেয়—নিজের ‎দোষে অপরকে হত্যা করতে উদ্যত হয়। ‎

হাবিল কিন্তু কাবিলের তুলনায় শক্তিশালী ছিল, তবু হাবিল বললেন, ‘তুমি যদি আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ‎হাত বাড়াও, তবুও আমি তোমাকে হত্যা করব না। আমি তো বিশ্বজগতের প্রতিপালক আল্লাহকে ভয় ‎করি। আমি চাই, তুমি আমার ও তোমার দুজনেরই গোনাহের ভার বহন কর এবং জাহান্নামিদের মধ্যে গণ্য ‎হও। আর এটাই জালিমদের শাস্তি।’‎ ‎

এ কথা শুনেও কাবিলের মনে আল্লাহর ভয় জাগল না, মনের ভেতরে ‎লুকিয়ে থাকা প্রবৃত্তি নামক পশু তাকে প্ররোচিত করল। সত্যি সত্যিই সে হাবিলকে মেরে ফেলল, এবং ‎অকৃতকার্যদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে গেল। ‎ এরপর সে অনুশোচনায় দগ্ধ হতে থাকে—এ কী করলাম আমি! ‎এখন এই লাশ নিয়ে আমি কী করব? ‎

তখনও পৃথিবীতে কোনো মানুষের মৃত্য হয়নি। কাবিল তাই জানত না কীভাবে লাশ দাফন করতে হয়। ‎সে বুকে অনুশোচনার ভারী পাথর আর পিঠে ভাইয়ের লাশ নিয়ে ঘুরতে থাকে। আল্লাহ তাআলা তখন ‎দুটো কাক পাঠিয়ে তাকে দাফনের নিয়ম শিখিয়ে দেন। ‘সে বলে উঠল, হায় আফসোস—আমি কি এই ‎কাকটির মতো হতে পারলাম না, যাতে আমার ভাইয়ের লাশ গোপন করতে পারি!’‎ ‎ ‎

শুধুমাত্র হিংসার কারণে, নিজের দোষ না খুঁজে অন্যকে দোষারোপ করার ফলে, কাবিল নিজেকে ‎হতভাগাদের অন্তর্ভুক্ত করে নেয়।

হাদিসে আছে, পৃথিবীতে যত হত্যাকাণ্ড হবে, তার সব গোনাহের এক ‎ভাগ পাবে কাবিল। কারণ সেই প্রথম হত্যার প্রচলন ঘটিয়েছিল।

আরো

© All rights reserved © 2023-2024 dailybengalgazette

Developer Design Host BD